মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫০ অপরাহ্ন

ব্যাটসম্যান তাসকিনের বিদায়ে বাংলাদেশ থামলো ৪৬৮ রানে

  • প্রকাশ সময় বৃহস্পতিবার, ৮ জুলাই, ২০২১
  • ১৩৩ বার দেখা হয়েছে

 

স্পোর্টস ডেস্ক: সর্বশেষ শ্রীলঙ্কা সিরিজেই বল হাতে নতুন তাসকিনকে দেখা গিয়েছিল। সেই তাসকিন আহমেদ এবার জিম্বাবুয়ে সফরেই দেখালেন অন্য রূপ! পুরো দস্তুর টেস্ট ব্যাটসম্যানশিপের উজ্জ্বল উদাহরণ হয়ে থাকলেন একমাত্র টেস্টে!

একমাত্র টেস্টে জিম্বাবুয়ের সামনে অসাধারণ দক্ষতায় খেলেছেন প্রায় দুটি সেশন। একটা সময় মনে হচ্ছিল ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরিটাও বুঝি করে ফেলবেন। কিন্তু স্পিনার শুম্বার বলে সুইপ করতে গিয়ে ৭৫ রানে থেমেছেন তাসকিন। তার বিদায়ের পর অবশ্য প্রথম ইনিংসটা শেষ হয়ে যায় সঙ্গে সঙ্গে। মুজারাবানির বলে ইবাদত হোসেন গ্লোভস বন্দি হলে প্রথম ইনিংসে ৪৬৮ রানে থেমেছে সফরকারী দল।

অবশ্য গতকাল যে পরিস্থিতি দাঁড়িয়েছিল সেখান থেকে উত্তরণে সবথেকে বড় অবদান ছিল মাহমুদউল্লাহর। অথচ এতদিন এই তারকা উপেক্ষিত ছিলেন টেস্ট ফরম্যাটেই! তাইতো ১৬ মাস পর ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণে ফেরার উপলক্ষটা রাঙিয়ে নিয়েছেন ঝলমলে সেঞ্চুরিতে। টেস্ট ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি পূরণ করে তিনি অপরাজিত ছিলেন ১৫০ রানে।

দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় ওভারেই ৩০০ ছাড়ায় বাংলাদেশ। আগের দিন অপরাজিত থাকা দুই ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ ও তাসকিন শুরু করেন দিনের খেলা।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারারে টেস্টে প্রথম দিন অম্লমধুর কেটেছিল। টপ অর্ডারে ব্যর্থতার গল্প যেমন আছে, তেমনি আছে প্রাপ্তির আনন্দও। ১০৯ রানে ৫ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ভাবাই যায়নি শেষটা হতে পারে এমন! অবশ্য সেখান পরিস্থিতি পাল্টাতে দৃঢ় ভূমিকাটা ছিল লিটন দাসের। লম্বা সময় ফর্মহীনতার পর রানে ফিরেছেন। তবে তার প্রাপ্তির আনন্দ যেমন আছে, তেমনি আছে না পাওয়ার যন্ত্রণাও। টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরির দারুণ সম্ভাবনা জাগিয়েও পারেননি এই উইকেটকিপার। ৯৫ রানে আউট হয়ে যান দিনের শেষ ভাগে। তবে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেন মাহমুদউল্লাহ। দীর্ঘ দিন পর লাল বলের ক্রিকেটে ফিরেই হাফসেঞ্চুরি পান তিনি।

তার সঙ্গে প্রথম দিন শেষ করেন তাসকিন আহমেদ। এই দুজনই শুরু করেন দ্বিতীয় দিন। এদিনই নিজের ভিন্ন রূপটা দেখিয়েছেন তাসকিন। তার ১৩৪ বলের ইনিংসে কী ছিল না? ১১টি চারের সঙ্গে দৃষ্টিনন্দন সব ক্রিকেটীয় শট খেলেছেন অনায়াসে। তাসকিনের বিদায়ে ভেঙেছে ১৯১ রানের অনবদ্য এক জুটি। অপরাজিত থাকা মাহমুদউল্লাহ অবশ্য খেলেছেন ২৭৮ বল। তার ইনিংসে ছিল ১৭টি চারের সঙ্গে একটি ছয়।

জিম্বাবুয়ের হয়ে ৯৪ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়েছেন ব্লেসিং মুজারাবানি। দুটি করে নিয়েছেন ডোনাল্ড তিরিপানো ও ভিক্তর নিয়ুচি। একটি করে নিয়েছেন মিল্টন শুম্বা ও রিচার্ড এনগ্রাভা।

 

 

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো নিউজ দেখুন
© All rights reserved © 2021 dailysuprovatrajshahi.com
Developed by: MUN IT-01737779710
Tuhin