সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:১৬ পূর্বাহ্ন

মুজিব শতবর্ষে দ্বিতীয় পর্যায়ে রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর গৃহ পাবে ৮৫৪ টি অসহায় পরিবার

  • প্রকাশ সময় শনিবার, ১৯ জুন, ২০২১
  • ১৮৪ বার দেখা হয়েছে

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: মুজিব শতবর্ষ উপলেক্ষ প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে রাজশাহীতে আগামীকাল রোববার গৃহহীন ৮৫৪টি পরিবারে মধ্যে একালিন সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ঘর ও জমি প্রদান করা হবে। এ উপলক্ষে আজ শনিবার দুপুর ১২টায় রাজশাহী জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী জেলা প্রশাসক এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজনে করেন।
সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আব্দুল জলিল বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘোষনা ‘বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’। এই স্লোগান নিয়ে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় পর্যায়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান করছেন। এর মধ্যে ভিক্ষুক, প্রতিবন্ধী, বিধবা, স্বামী পরিত্যাক্তা ও প্রবীণ ব্যক্তিগণকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জমি ও ঘর প্রদান করা হচ্ছে। এর ধারাবাহিকতায় রাজশাহী জেলার নয়টি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীণ ৮৫৪টি পরিবারের মধ্যে জমি ও ঘর প্রদান করা হবে তিনি উল্লেখ করেন।

এর মধ্যে জেলার পবা উপজেলায় বরাদ্দকৃত গৃহের সংখ্যা পবায় ৫০টি, মোহনপুরে ৫০টি, গোদাগাড়ীতে ৪০৩টি, তানোরে ১০৫টি, পুঠিয়ায় ১১০টি, দুর্গাপুরে ১৪টি, চারঘাটে ১০টি, বাঘায় ৩৫টি ও বাগমারায় ৭৭টি। ইতোপূর্বে প্রথম পর্যায়ে জেলায় আরো ৬৯২টি গৃহ হস্তান্তর করা হয়।
জেলা প্রশাসক আরো বলেন, গৃহ প্রাপ্তদের বিদ্যুৎ সংযোগ, জমির দলিল ও নিজ নামে নামজারী সব কিছু সরকার করে দিচ্ছেন। সেইসাথে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর বিনামূলে নলকুপ স্থাপন করবেন। শুধুমাত্র সুবিদাভোগিরা জামাই আদরে ঘরে উঠবেন এবং সুখে শান্তিতে বসবাস করবেন বলে তিনি সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দরিদ্র অসহায়, ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য যেভাবে বসবাসের ব্যবস্থা করছেন, পৃথিবীর অন্যকোন দেশে এমন নজির নাই। অন্যান্য জেলাতে একটি স্থানে শত শত বাড়ি করে প্রদান করা হচ্ছে। কিন্তু রাজশাহীতে তার না করে বসবাসকারীদের সুবিধার্তে নিজ এলাকায় গৃহনির্মাণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
জেলা প্রশাসক বলেন, এই কাজে কোন প্রকার ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়নি। কারন উপজেলা বাস্তবায়ন কমিটি এই ঘর গুলো নির্মান করছেন। পূর্বে একটি গৃহ নির্মাণ করতে এক লক্ষ একাত্তর হাজার ব্যায় হতো। কিন্তু নির্মাণ সামগ্রীল মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় একই ধরনের ঘর তৈরী করতে এখন এক লক্ষ নব্বই হাজার টাকা ব্যায় হচ্ছে। সরকার কোন ব্যক্তিকে গৃহহীন রাখবেনা উল্লেখ করে আগামীতেও এই ধরনের গৃহ প্রদান চলমান থাকবে বলে জানান তিনি।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এই গৃহ প্রদান করা হচ্ছে। কেউ এর বিনিময়ে টাকা নিলে, আর এর প্রমান পেলে দুর্ননিতিবাজ কাউকে কোন ভাবেই রেহাই দেয়া হবেনা। এখন যারা গৃহ পাচ্ছেন এবং আগামীতে পাবেন তাদের কারো সাথে অর্থ লেনদেন না করা পরামর্শ দেন তিনি। সেইসাথে সাংবাদিকদের পরিচিত কিংবা আত্মীয়স্বজন গৃহহীন ও দরিদ্র হলে তাদের তালিকা দেয়ার অনুরোধ করেন জেলা প্রশাসক। পরে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন শেষ করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক শাহানা আখতার জাহান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) আবু আসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) কল্যাণ চৌধুরী, ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আমিনুল হক এবং সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (সাধারণ শাখা) অভিজিত সরকারসহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো নিউজ দেখুন
© All rights reserved © 2021 dailysuprovatrajshahi.com
Developed by: MUN IT-01737779710
Tuhin