সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১১ অপরাহ্ন

দূর্গাপুরে ননদ কর্তৃক ভাবিকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ

  • প্রকাশ সময় শুক্রবার, ২০ আগস্ট, ২০২১
  • ২২০ বার দেখা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী দুর্গাপুর উপজেলার দেলুয়াবাড়ি ইউনিয়নের নামোদর খালি গ্রামে ননদের স্বামীর অনৈতিক প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়ায় ভাবিকে হত্যার চেষ্ঠার অভিয়োগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় উজ্জলের স্ত্রী ইসমোতারা এখন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসা ধীন রয়েছে। ইসমোতারার স্বামী উজ্জল বলেন, তার বোন লিপি খাতুনের স্বামী রুবেল তার স্ত্রীর দিকে প্রথম খেকেই কুনজর দিয়ে আসছিলো। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে তাঁকে অনৈতিক প্রস্তাবও দিতো। এই প্রস্তাবে রাজী না হওয়ায় তার স্ত্রীকে ধর্ষন এবং তাদের ক্ষতি করার চেষ্টা করতো বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, রুবেল প্রায় তাদের বাড়িতে যেত এবং এই অনৈতিক প্রস্তাব দিতো বলে জানান তিনি। এনিয়ে পূর্বেও রুবেলের সাথে বাকবিতণ্ডা হয়। বিয়ের পর থেকেই রুবেল এই ধরনের আচরণ করতো বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, তার মা ছানোয়ারা বেগম স্ত্রী হিসেবে স্বামীর সম্পদ পান। সেই সম্পদ তাকে নামে লিখে দেন তিনি। তার নামে সম্পত্তি লিখে দিলে রুবেল ও তার বোন লিপি তার উপর চরম ভাবে ক্ষিপ্ত হন এবং সার্বক্ষণিক তাদের ক্ষতি করার চেষ্টায় লিপ্ত থাকেন।

এর জের ধরে গত ১৮ আগস্ট বুধবার আনুমানিক সকাল ৯.৪০ টায় বাড়িতে কেউ না থাকায় লিপি অকথ্য ভাষায় ইসমোতারাকে গালাগালি শুরু করেন। এসময় ইসমোতারা গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে তার বোন জামাই রুবেল তার উপর চড়াও হয় এবং অতর্কিত হামলা চালায় । রুবেল প্রথমে দেশীয় অস্ত্র লাঠি মারপিট শুরু করে এবং পরে ছ্যানদা দিয়ে মাথায় কোপ দিলে বাম চোখের উপরে জখম হয়। এর পর লিপি খাতুন চুলের ঝুটি ধরে মাথা ওয়ালের সাথে বার বার ধাক্কা দিতে থাকে।

এক পর্যায়ে মাথায় ও মুখে প্রচন্ড ব্যাথা পেয়ে ইসমোতারা জ্ঞান হারিয়ে ফেলে এবং মুখের নিচের মাড়ি থেতলে চোয়াল ভেংগে বেরিয়ে আসে। সে সময় লিপি খাতুন তার হাতে থাকা লাঠির দিয়ে এলোপাথাড়ি মারপিট করে মারাত্নকভাবে আহত করে তার স্ত্রীকে। এতে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফুলে যায় এবং জখম হয়। এ সময়ে তার প্রচুর রক্তপাত হয়। ইসমোতারা অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে গেলে লিপি খাতুন পুনরায় তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার গলার ভেতর হাত ঢুকিয়ে কলিজা বের করে আনার চেষ্টা করে বলে জানান উজ্জল হোসেন।

উজ্জল আরো বলেন, বাড়িতে গোলযোগের কথা শুনে দ্রুত বাড়ির পাশে আসতেই বাড়ির ভেতরে মারামারির শব্দ শুনতে পান তিনি। বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করেই দেখে তার স্ত্রী জ্ঞান হারিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় মেঝেতে পড়ে আছে। পরে তাকে উদ্ধার করে জ্ঞান ফেরানোর চেষ্টা করেন। আর এই ফাঁকে লিপিরা তার স্ত্রীর গলার স্বর্নের চেন ও কানের স্বর্নের দুল নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে দূর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন তিনি।

সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর অবস্থার অবনতি হলে ডাক্তার তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। ইসমোতারার মাথায় ৪ টি সেলাই দেয়া হয়েছে। মুখের ভেতর নিচের সারির মাড়ি ও চোয়াল ভেংগে বের হবার কারনে মুখে অপারেশন করা হয়। বর্তমানে তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় রয়েছেন বলে জানান উজ্জল।

এ বিষয়ে ইসমোতারার ভাই সাদ্দাম হোসেন বলেন, তার বোনকেকে ননদ ও তার স্বামী রুবেল হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালিয়েছে। রুবেল পূর্ব থেকে তার বোনকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। এ বিষয়ে তার বোন রাজি না হওয়ায় পূর্ব থেকেই বোনের উপরে রুবেলের ক্ষোভ ছিলো। শুধু তাই নয় সম্পত্তি নিয়েও বর্তমানে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়েছে। আর এই সুযোগে রুবেল তার বউ লিপি খাতুনকে উস্কে দিয়ে তার বোনকে হত্যা চেষ্টা চালিয়েছে বলে জানান তিনি। বোন গুরুতর অসুস্থ্য থাকায় এ বিষয়ে এখনও কোনো মামলা করা হয়নি। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি। তার বোনকে হত্যার চেষ্টায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেন সাদ্দাম।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো নিউজ দেখুন
© All rights reserved © 2021 dailysuprovatrajshahi.com
Developed by: MUN IT-01737779710
Tuhin